business loans, commercial loan, auto insurance quotes, motorcycle lawyer

কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয় - তা জানতে চাচ্ছেন?

কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয় তা জানতে চাচ্ছেন? এই পোস্টের মাধ্যমে জানতে পারবেন কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয়? তাহলে কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয় জানতে পোস্টটি পড়ুন এবং আমাদের সাথে থাকুন। 


কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয় অনেকের মনে এই প্রশ্নটি প্রায় ঘুরপাক খায়। বর্তমানে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে দেখা যায় অনেকে তাদের পরিবার পরিজনের সুস্থতা কামনা করে সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করছেন।


অথবা কেউ বা জীবনে ভালো কিছু করতে যাচ্ছে যার জন্য শুভকামনা হিসেবে দোয়া চাইছে। এছাড়াও কারো সাথে কারো দেখা হলে পরস্পর পরস্পরের কাছে দোয়া প্রার্থনা করে থাকেন। 


অনেকের প্রশ্ন থাকে কেউ দোয়া চাইলে কি বলতে হয় । দোয়া চাইলে কি বলতে হয় জানতে চাইলে এই পোস্টটি পড়ুন এবং আমাদের সাথে থাকুন। 

কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয় - তা জানতে চাচ্ছেন?


কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয়? কেউ দোয়া চাইলে কি বলব?

একজন মুসলিম হিসেবে আপনার উচিত প্রত্যেক কাজের মাধ্যমে আল্লাহকে স্মরণ করে। আল্লাহের কাছে ইবাদাত করা। আর এই ইবাদাত করার জন্য প্রত্যেক মুহুর্তে আল্লাহকে মনে করতে হবে, আল্লাহর নাম নিতে হবে, দোয়া পড়তে হবে। 


আপনি কারো সাথে দেখা হলে ‘হাই’ অথবা ‘ হ্যালো’ না বলে সালাম দিন। অথবা সকালে ঘুম থেকে উঠে ‘ শুভ সকাল’ না বলে ‘ফি আমানিল্লাহ’ বলুন। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ‘গুড নাইট’ না বলে ফি আমানিল্লাহ বলুন। কাউকে বিদায় দেওয়ার সময় তাকে ‘টাটা’ না দিয়ে আল্লাহ হাফেজ বলুন। 


কেউ দোয়া চাইলে ফি আমানিল্লাহ বলা যাবে কি?

কেউ দোয়া চাইলে তাকে ‘ফি আমানিল্লাহ’ বলুন। যদিও ফি আমানিল্লাহ এর কোনো ভিত্তি নেই তবে ‘ফি আমানিল্লাহ’ বলাতে কোনো ক্ষতিও নেই। সবচেয়ে ভালো হয় যেসব দোয়া পড়া সুন্নত সেসব দোয়া পড়া। 


বিদায়কালে কেউ দোয়া চাইলে কি বলতে হবে?

কেউ বিদায়কালে দোয়া চাইলে ফি আমানিল্লাহ বলার মধ্যে ক্ষতিকর কোনো কিছু নেই । তবে হাদীসে রয়েছে সুন্নত হলে নিম্নোক্ত দোয়াটি পড়াঃ


‎أَسْتَوْدِعُ اللَّهَ دِينَكَ وَأَمَانَتَكَ وَخَوَاتِيمَ عَمَلِكَ


উচ্চারণঃ আসতাও দিউল্লাহা দ্বিনাকুম, ওয়া আমানাতাকুম, ওয়া খাওয়াতিমা আ’মালিকুম।’


এর অর্থ হলো  ‘আমি আল্লাহর নিকট তোমাদের দ্বিন, আমানত ও সর্বশেষ আমলের হিফাজতের জন্য দোয়া করছি।’


যদি কেউ পুরো দোয়াটি না পড়তে না পারেন সেক্ষেত্রে ‘আসতাও দিউল্লাহা’ পড়লেই হবে। 


এই দোয়াটি বিদায়কালে বেশি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। 


কেউ তার জন্য দোয়া চাইলে কি বলতে হয়? 

দোয়া চাওয়া নিয়ে হযরত আনাস ইবনু মালিক রাদিয়াল্লাহ আনহু এর সম্পর্কিত একটি সুন্দর ঘটনা রয়েছে। একবার  হযরত আনাস ইবনু মালিক রাদিয়াল্লাহ আনহু এর মা উনাকে নিয়ে গেলে হযরত মহনাবী (সঃ) এর কাছে। 


রাসূলের কাছে গিয়ে বললেন উনি যেন উনার ছোট খাদেম ওরফে হযরত আনাস ইবনু মালিক রাদিয়াল্লাহ আনহু এর জন্য দোয়া করেন। তখন রাসূল (সঃ) নিম্নোক্ত দোয়াটি পড়লেন-


للَّهُمَّ اكْثِرْ مَا لَهُ وَ وَلَدَهُ وَ اَطِلْ عُمْرَهُ وَاغْفِرْلَهُ وَ بَارِكْ لَهُ فِيْمَا رَزَقْتَهُ


উচ্চারণ : আল্লাহুম্মাকছির মা লাহু ওয়া ওয়ালাদাহু ওয়া আত্বিল ওমরাহু ওয়াগফির লাহু ওয়া বারিক লাহু ফিমা রাযাক্বতাহু।


এর অর্থ হলোঃ হে আল্লাহ! আপনি তার অর্থ, সন্তান ও বয়স বেশি করে দিন। আর তাকে ক্ষমা করুন এবং তাকে যে রিজিক দিয়েছেন তাতে বরকত দিন।’ (সিলসিলা সহিহা)


এছাড়াও কেউ দোয়া চাইলে ‘বারাকাল্লাহু” বলতে পারেন। বারাকাল্লাহু এর অর্থ হলো ‘ আল্লাহ আপনার মঙ্গল করুন’।


কেউ দোয়া চাইলে উত্তরে কি বলতে হয়? 

দোয়া হলো আল্লাহকে স্মরণ করা। আল্লাহকে ইবাদাত করা। প্রত্যেকটি কাজের জন্য রয়েছে আলাদা আলাদা দোয়া। আপনি যখনি কোনো কাজ শুরু করবেন তখনই দোয়ার মাধ্যমে আল্লাহর নাম নিবেন। 


দোয়া করে আল্লাহ এর নাম নেয়া মানে আপনি আল্লাহ এর কাছে আপনার নিরাপত্তা অথবা সফলতা অথবা আপনার যদি কিছু চাওয়ার থাকে তা চেয়ে থাকেন। ইতে করে প্রত্যেক মুহূর্তে আল্লাহ এর ইবাদাত করা হলো। যেমনঃ কোনো কাজের শুরুতে ‘বিসমিল্লাহ’ বলতে হয়।  


কোনো কাজে সফলতা আসলে ‘ আলহামদুলিল্লাহ’ বলতে হয়। কোনো সুন্দর কিছু দেখলে আল্লাহর সৃষ্টির উপর সম্মান জানিয়ে ‘ সুবহানাল্লাহ’ বলতে হয়। এরকম আরো অনেক দোয়া রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি আল্লাহর নিকটাপন্ন হতে পারবেন। 


কেউ দোয়া চাইলে সংক্ষেপে কি বলতে হয়?

আশা করি সবাই পোস্টটি পড়ে জানতে পেরেছেন কেউ দোয়া চাইলে কি বলতে হয়। সবসময় মনে রাখবেন কেউ যদি আপনার ভালো করে তার জন্য তো দোয়া করবেনই পাশাপাশি কেউ যদি আপনার খারাপ চায় অথবা কারো সাথে যদি মনোমালিন্য থেকে থাকে তার জন্য আরো বেশি করে দোয়া করবেন। 


আপনি যত বেশি দোয়া করবেন তত বেশি নেকী অর্জন করতে পারবেন। কেননা দোয়া করার মাধ্যমে আপনি আল্লাহ এর ইবাদাত করছে। আল্লাহকে ডাকছেন। এতে করে আপনি আল্লাহ এর প্রিয় বান্দা হয়ে উঠবেন। 


তাই সবাই বেশি বেশি দোয়া করবেন যেকোনো কাজের শুরুতে বিসলিল্লাহ বলবেন। কেউ দোয়া চাইলে তাকে দোয়া করে দিবেন। না চাইলেও দোয়া করবেন। এতে করে আপনার সফলতাই বেশি আসবে

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url