business loans, commercial loan, auto insurance quotes, motorcycle lawyer

Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay

Assalamu Alaikum Dear Students. Today's Topic is Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay. If you want to get Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay Well in Your Mind Then You Must Read Carefully. Let's know Today's Topic Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay.

Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay
Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay

Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay

Bangladesh became independent in 1971 through a long nine months bloody war. Freedom. does not come down upon a nation. A nation must rise itself to achieve it. Many heroic sons sac rificed their life to bring freedom and they are called 'freedom fighter', the most common word in the heart of the mass people. The freedom fighters .fought for a dream to make a corruption and exploitation free society but their dream is still a far cry. Some of them are leading their life in a iniserah e condition because their dream has not yet come true. They are not living in the society with dignity and honour. The story of such a freedom fighter is described in. short. 

Many brave sons of us left their homes in response to the call of homeland. Kador All was one of them who took part in several attacks under the command of sector commander Major Monzur. lie took part in a bloody battle at Kumarkhali. He fought heroically and lost one of his hands. 

Kador Ali became unfit to work hard. He had a family consisting of eight members. lie was not shown any from any corner. He was not given any financial help so that he could lead his family without hunger. Fortune disfavoured him and he started begging. Sometime he was seen to pass night beside the road without having meal. One night he left this unfeeling world where love, sympathy and affection do not exist. This is the true life story of a great son of this land who'fought bravely against the enemies and brought independence for us. The nation did not show any dignity and honour but neglect and frustration. 

Thus, after a sea of blood and lot of sacrifices we achieved our freedom from Pakistan. Today we are_ proud as an independent and sovereign nation. Our liberation war has gone down to history. But it is a history written down with blood. It is an achievement that is more valuable than our lives. Our liberation war is our living memory, our greatest achievement and our pride. It teaches us to rise for any just cause. to bring home our rights. and to stand upright in the world. 

Now the condition is gradually changing. The govt. is now working for materializing the dreams of the freedom fighters. They should he favoured with financial assistance so that they can get dignified life in society. But it Is an irony of fate that the great freedom fighter Kador Ali could not see the present situation of the state. The freedom fighters are the greatest sons of our land. All should respect them for their honest sacrifices. Effective steps must be taken to honour them during their life time so that no freedom fighters face the destiny of Kador Alt, our dearest one. 

অনুবাদঃ দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। স্বাধীনতা। কোন জাতির উপর নেমে আসে না। এটি অর্জনের জন্য একটি জাতিকে নিজেকে উঠতে হবে। অনেক বীর সন্তান স্বাধীনতা আনতে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন এবং তাদের বলা হয় 'মুক্তিযোদ্ধা', যা গণমানুষের হৃদয়ে সবচেয়ে প্রচলিত শব্দ। মুক্তিযোদ্ধারা দুর্নীতি ও শোষণমুক্ত সমাজ গড়ার স্বপ্নের জন্য লড়াই করেছিলেন কিন্তু তাদের স্বপ্ন এখনও দূরের কথা। তাদের স্বপ্ন এখনো পূরণ না হওয়ায় তাদের কেউ কেউ অসহায় অবস্থায় জীবন যাপন করছেন। তারা সমাজে মর্যাদা ও সম্মানের সাথে বসবাস করছে না। এমন একজন মুক্তিযোদ্ধার গল্প সংক্ষেপে বর্ণিত হয়েছে।

স্বদেশের ডাকে সাড়া দিয়ে আমাদের অনেক সাহসী ছেলে ঘর ছেড়েছে। সেক্টর কমান্ডার মেজর মনজুরের নেতৃত্বে বেশ কয়েকটি হামলায় অংশ নিয়েছিলেন তাদের মধ্যে কাদর অল অন্যতম। মিথ্যা কুমারখালীতে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে অংশ নেয়। তিনি বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করেন এবং তার একটি হাত হারান।

কঠোর পরিশ্রমের অযোগ্য হয়ে পড়েন কদর আলী। আট সদস্যের একটি পরিবার ছিল তার। মিথ্যা কোন কোণ থেকে দেখানো হয়নি. তাকে কোনো আর্থিক সাহায্য দেওয়া হয়নি যাতে সে তার পরিবারকে অনাহারে পরিচালনা করতে পারে। ভাগ্য তার প্রতি অনুগ্রহ করে এবং সে ভিক্ষা করতে শুরু করে। মাঝে মাঝে তাকে রাস্তার পাশে না খেয়ে রাত পার করতে দেখা যায়। এক রাতে তিনি এই অনুভূতিহীন পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেন যেখানে ভালবাসা, সহানুভূতি এবং স্নেহ নেই। এই ভূমির একজন মহান সন্তানের সত্যিকারের জীবন কাহিনী যে শত্রুদের বিরুদ্ধে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে আমাদের জন্য স্বাধীনতা এনে দিয়েছে। জাতি কোনো মর্যাদা ও সম্মান দেখায়নি বরং অবহেলা ও হতাশা দেখায়নি।

এভাবে এক সাগর রক্ত ​​ও অনেক ত্যাগের পর আমরা পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা অর্জন করি। আজ আমরা একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম জাতি হিসেবে গর্বিত। আমাদের মুক্তিযুদ্ধ ইতিহাসে নেমে গেছে। কিন্তু এটা রক্ত ​​দিয়ে লেখা ইতিহাস। এটি এমন একটি অর্জন যা আমাদের জীবনের চেয়েও মূল্যবান। আমাদের মুক্তিযুদ্ধ আমাদের জীবন্ত স্মৃতি, আমাদের সবচেয়ে বড় অর্জন এবং আমাদের অহংকার। এটা আমাদের যে কোনো ন্যায়সঙ্গত কারণে উঠতে শেখায়। আমাদের অধিকার ঘরে তুলতে। এবং পৃথিবীতে সোজা হয়ে দাঁড়াতে।

এখন ধীরে ধীরে অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে। সরকার এখন মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করছেন। তারা যেন সমাজে মর্যাদাপূর্ণ জীবন পেতে পারে সেজন্য তাকে আর্থিক সহায়তা দিতে হবে। কিন্তু ভাগ্যের পরিহাস মহান মুক্তিযোদ্ধা কদর আলী রাষ্ট্রের বর্তমান অবস্থা দেখতে পাননি। মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাদের সৎ ত্যাগের জন্য সকলের তাদের সম্মান করা উচিত। তাদের জীবদ্দশায় তাদের সম্মান জানানোর জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে যাতে কোনো মুক্তিযোদ্ধা আমাদের প্রিয়তম কাদর অল্টের নিয়তির মুখোমুখি হতে না হয়।

The End Of The Article: Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay

We Have Learned So Far Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay. If You Like Today's Life of a Freedom Fighter in Bangladesh Essay, You Can Share it With Your Facebook Friends. And Stay With Our RK Raihan Website To Get Daily New Posts Like This.

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url