আরকে রায়হান https://www.rkraihan.com/2021/10/division-lis.html

বাংলাদেশের সকল বিভাগের ইতিহাস বিস্তারিত জানুন



 বন্ধুরা আজকে আমরা জানব বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি ও কি কি। সব গুলো বিভাগ সম্পর্কে বিস্তারিত জানব। { Bangladesh Division List }

ব্রিটিশ শাসনামলে তৎকালীন বাংলা প্রদেশে সর্বপ্রথম বিভাগ গঠন করা হয়। সেসময় বর্তমান বাংলাদেশের ভূখণ্ডে রাজশাহী, ঢাকা ও চট্টগ্রাম এই তিনটি বিভাগ গঠন করা হয়। 

বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি ও কি কি - সকল বিভাগের ইতিহাস জানুন


বিভাগ গঠন

পরবর্তীতে রাজশাহী ও ঢাকা বিভাগের একাংশ নিয়ে ১৯৬০ সালে খুলনা বিভাগ গঠিত হয়। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশে এই চারটি বিভাগ ছিল। খুলনা বিভাগের একাংশ নিয়ে ১৯৯৩ সালে বরিশাল বিভাগ গঠিত হয়, এবং ১৯৯৮ সালে চট্টগ্রাম বিভাগকে ভেঙে সিলেট বিভাগ প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১০ সালে ২৫ শে জানুয়ারি বৃহত্তর রংপুর আর দিনাজপুর অঞ্চল নিয়ে রংপুর বিভাগ গঠন করা হয়, যা আগে রাজশাহী বিভাগের অন্তর্ভুক্ত ছিল।

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তে অষ্টম বিভাগ হিসেবে ময়মনসিংহ বিভাগ-এর নাম ঘোষণা করা হয়। পূর্বে এটি ঢাকা বিভাগের অংশ ছিল।


বিভাগীয় কমিশনার প্রশাসনিক কাঠামোতে স্থানীয় সরকার পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে সর্বোচ্চ পদাধিকারী। ১৮২৯ সালে উপনিবেশ শাসনকালে কমিশনার পদটি সৃষ্টি করা হয়। বিভাগীয় কমিশনারের প্রাথমিক দায়িত্ব হচ্ছে তার অধীনস্থ বিভাগের কেন্দ্রীয় সরকারি দপ্তর ব্যতীত সকল রাজস্ব ও প্রশাসন সংক্রান্ত কাজের তদারকি করা। সাধারণত স্থানীয় সরকার ব্যবস্থায় পূর্ব অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সিনিয়র যুগ্মসচিব বা অতিরিক্ত সচিব পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাগণ কমিশনার হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হন।

বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি

অনেকের মনে প্রশ্ন যে বাংলাদেশে বিভাগ কয়টি তা তারা জানে না তাই গুগলে এসে সার্চ করে কিন্তু সঠিক বা বিস্তারিত খুজে পায়না । তাই তাদের জন্য আজকের এই পোস্টা করলাম। আপনি এই পোস্ট থেকে জানতে পারবেন বাংলাদেশের বিভাগ কয়টি ও কি কি এবং সব বিভাগ সম্পর্কে বিস্তারিত।


বাংলাদেশের বিভাগ ৮টি.........

  • ঢাকা

  •  বরিশাল 

    • চট্টগ্রাম
    • খুলনা
    • রংপুর
    • ময়মসিংহ
    • রাজশাহী
    • সিলেট


    ঢাকা বিভাগ পরিচিতি

    ঢাকা বিভাগ হলো বাংলাদেশের ৮টি বিভাগের মধ্যে অন্যতম। ঢাকাকে বাংলাদেশের কেন্দ্র বিন্দু বলা হয়। ঢাকা বিভাগে যত গুলো বিভাগ আছে তার মধ্যে টাঙ্গাইল সবচেয়ে বড় জেলা।

    ঢাকার ভিতরে ১৩ টি জেলা আছে, পৌরসভা আছে ৫৮ টি , উপজেলা আছে ১২৩ টি, ইউনিয়ন পরিষদ আছে ১২৩৯ টি এবং ওয়ার্ড আছে ৫৪৯ টি ।

    ঢাকা বিভাগের আয়তন ৩১০৫১ বর্গ কিঃ মিঃ।

    ঢাকা বিভাগ কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এটা হয়তো সবার জানা নাও থাকতে পারে তবে জেনে রাখা ভাল ১৯৮২ সালে ঢাকা বিভাগ এবং ঢাকা শহরের ইংরেজি বানান Dacca (ঢাক্কা) কে পরিবর্তন করে Dhaka (ঢাকা) করা হয় যাতে বাংলা উচ্চারণের সাথে ইংরেজি বানান আরও সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়।


    অনেকেই প্রশ্ন করে ঢাকা বিভাগে কয়টি জেলা। তাই আমি ঢাকা বিভাগের ১৩ টি জেলার নাম নিচে তুলে ধরলাম জেনো আপনাদের বুজতে অসুবিধা না হয়।

    ঢাকা বিভাগের জেলা সমূহ

    • ঢাকা জেলা
    • কিশোরগঞ্জ জেলা
    • গাজীপুর জেলা
    • গোপালগঞ্জ জেলা
    • টাঙ্গাইল জেলা
    • নরসিংদী জেলা
    • নারায়ণগঞ্জ জেলা
    • ফরিদপুর জেলা
    • মাদারীপুর জেলা
    • মানিকগঞ্জ জেলা
    • মুন্সিগঞ্জ জেলা
    • রাজবাড়ী জেলা
    • শরীয়তপুর জেলা


    আর হ্যা ঢাকাকে মেগাসিটি বলা হয় কারন ঢাকাতে ১ কোটির বেশি মানুষ বাস করে । যদি কোন এলাকায় এক কোটির বেসি মানুষ বাস করে তাহলে সেই এলাকাকে মেগাসিটি বলা হয়। বর্তমানে পৃথিবীতে ২৬ টি মেগাসিটি আছে তার মধ্যে ঢাকা ১১ তম।


    বরিশাল বিভাগের ইতিহাস

    বাংলাদেশের আটটি বিভাগের আর একটি বিভাগ হলো বরিশাল বিভাগ। এই বিভাগ টি আগে ঢাকা এবং খুলনা বিভাগের ভিতরে ছিল। ১৯৯৩ সালে বরিশাল বিভাগ নিজস্ব বিভাগে পরিণত হয়। 

    বরিশাল বিভাগের আয়তন ২,৭৮৪.৫২ বর্গ কি.মি. পৌরসভা আছে ০৬ টি , উপজেলা আছে ১০ টি, ইউনিয়ন পরিষদ আছে ৮৭ টি এবং থানা আছে ১৪ টি ।

    সড়ক পথে ঢাকা হতে বরিশালের দূরত্ব ২৭৭ কিলোমিটার। অপরদিকে বরিশাল হাইডোগ্রাফী বিভাগ ২০০৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে জরীপ শেষে ঢাকা-বরিশাল নৌপথের দূরত্ব ১৬১ কিলোমিটার বলে জানিয়েছে।

    বরিশাল বিভাগে অনেক ধরনের নদ নদি আছে কীর্তনখোলা, মেঘনা, আড়িয়াল খাঁ, ধানসিঁড়ি, সন্ধ্যা নদী।


    বরিশাল বিভাগের জেলা সমূহ

    • বরিশাল জেলা
    • পটুয়াখালী জেলা
    • ভোলা জেলা
    • পিরোজপুর জেলা
    • বরগুনা জেলা
    • ঝালকাঠি জেলা।


    বাংলাদেশের দক্ষিণাচলে অবস্থিত সমুদ্রের উপকূলবর্তী বরিশাল বিভাগ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর। বরিশাল বিভাগের প্রত্যেকটা জেলাতেই অসংখ্য দর্শনীয় চিত্তাকর্ষক স্থান রয়েছে।

    এসব পর্যটন স্থান ভ্রমণ করতে প্রতি বছর হাজার হাজার দেশি এবং নিদেশি পর্যটক ভিড় জমায়। এই প্রবন্ধটিতে বরিশাল বিভাগের প্রত্যেকটা জেলার বিখ্যাত এবং জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থান সমূহের নাম উল্লেখ করা হল।

    • কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত
    • দূর্গা সাগর
    • মনপুরা দ্বীপ
    • সোনারচর


    চট্টগ্রাম বিভাগের ইতিহাস 

    চট্টগ্রাম বাংলাদেশের দক্ষিণ - পূর্বা অঞ্চলের একটি বিভাগ। বাংলাদেশের আটটি বিভাগের মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগ আয়তনে অনেক বড়।

    চট্টগ্রাম বিভাগের ১১টি জেলা এবং ৯৯টি উপজেলা আছে। নিম্নের তালিকায় প্রথম ৬ লিখিত জেলা, বিভাগের উত্তরপশ্চিম অঞ্চলে অবস্থিত (৩৭.৬%)। বাকী ৫ জেলা, বিভাগের দক্ষিণপূর্ব অঞ্চলে অবস্থিত (৬২.৪%)। এই দুই অঞ্চল ফেনী নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন। 

    ৩টি পার্বত্য জেলা (খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান) পার্বত্য চট্টগ্রাম নামে পরিচিত। ১৯৯৫ সালের আগে, বাংলাদেশের সিলেট বিভাগও এই বিভাগের অন্তর্ভুক্ত ছিলো।

    অনেকেই গুগলকে প্রশ্ন করে চট্টগ্রাম বিভাগে কয়টি জেলা আছে। আমি আপনাদের জানানোর জন্যে নিচে চট্টগ্রাম বিভাগের জেলা সমূহ দিয়ে দিলাম।


    চট্টগ্রাম বিভাগের জেলা সমূহ ১১টি

    • কুমিল্লা জেলা
    • ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা
    • চাঁদপুর জেলা
    • লক্ষ্মীপুর জেলা
    • নোয়াখালী জেলা
    • ফেনী জেলা
    • খাগড়াছড়ি জেলা
    • রাঙ্গামাটি জেলা
    • বান্দরবান জেলা
    • চট্টগ্রাম জেলা
    • কক্সবাজার জেলা


    খুলনা বিভাগের ইতিহাস

    বাংলাদেশের আটটি বিভাগের মধ্যে একটি খুলনা বিভাগ। খুলনা বিভাগ দেশের দক্ষিণ পশ্চিম দিকে অবস্থিত। খুলনা বিভাগের সদর দপ্তর খুলনা শহর।  খুলনা বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে রূপসা নদী এবং ভৈরব নদীর তীরে অবস্থিত। বাংলাদেশের প্রাচীনতম নদী বন্দরগুলোর মধ্যে খুলনা অন্যতম।

    বর্তমান খুলনা বিভাগ আগে রাজশাহী বিভাগের অন্তর্গত ছিলো এবং বরিশাল ছিলো ঢাকা বিভাগের অন্তর্গত। পরবর্তীতে ১৯৬০ সালে তৎকালীন রাজশাহী বিভাগের কুষ্টিয়া, যশোর ও খুলনা এবং ঢাকা বিভাগের বরিশাল,ফরিদপুর নিয়ে খুলনা বিভাগের যাত্রা শুরু হয়।


    ২০১১ সালের আদমশুমারী অনুয়ায়ী, বিভাগটির আয়তন ২২,২৮৫ বর্গ কিলোমিটার এবং জনসংখ্যা ১৫,৫৬৩,০০০ জন। খুলনা শহর থেকে ৪৮ কি.মি. দূরে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর মোংলা বন্দর অবস্থিত।


    খুলনা বিভাগের জেলা সমূহ

    • কুষ্টিয়া জেলা
    • খুলনা জেলা
    • চুয়াডাঙ্গা জেলা
    • ঝিনাইদহ জেলা
    • নড়াইল জেলা
    • বাগেরহাট জেলা
    • মাগুরা জেলা
    • মেহেরপুর জেলা
    • যশোর জেলা
    • সাতক্ষীরা জেলা

    খুলনা জেলাতে অসংখ্য শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এছাড়াও বাগেরহাট সহ বাকি জেলা গুলোতে কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

    এছাড়া দেশের সবচেয়ে বড় স্থলবন্দর বন্দর খুলনা বিভাগের যশোরে অবস্থিত।এছাড়া কুষ্টিয়ায় রয়েছে ভারী শিল্পাঞ্চল।বাংলাদেশের কয়েকটি উঁচু ভবনের মধ্যে কুষ্টিয়ার বিআরবি কেবল টাওয়ার ৪০ তালা অন্যতম।এছাড়া যশোরে রয়েছে মাইকেল মধুসূদন দত্তের ভিটা,কুষ্টিয়ায় রয়েছে কবি রবীন্দ্রনাথের ভিটা,বাগেরহাটে রয়েছে ষাট গম্বুজ মসজিদ সহ খুলনা বিভাগের জেলা গুলো তে রয়েছে অনেক নিদর্শন।

    রংপুর বিভাগের ইতিহাস

    ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ জানুয়ারিতে বাংলাদেশের সপ্তম বিভাগ হিসেবে ঘোষিত হয়।[১] রংপুর বিভাগের পূর্বের ভারতের অসম ও মেঘালয় রাজ্য এবং ময়মনসিংহ বিভাগের জামালপুর জেলা , পশ্চিম ও উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য এবং দক্ষিণে রাজশাহী বিভাগ অবস্থিত।

    সম্রাট আকবর এর সেনাওপতি মনিসিং ১৫৭৫ সালে এই রংপুর অঞ্চল কারায়ত্ত করেন। ১৬৮৬ সাল নাগাদ পুরো রংপুর অঞ্চল মোগল সাম্রাজের অধীনে চলে যায়। কুড়িগ্রামে অবস্থিত মোঘলবাসা, মোঘলহাট এখনো তার স্মৃতি বহন করে। তখন মূলত শাসনাঞ্চল ২ ভাগে ভাগ ছিল৷ এক অংশ নিয়ন্ত্রণ করত ঘোড়াঘাটের সরকার এবং অন্যাংশ ছিল পিঞ্জিরার সরকার। 

    ঘোড়াঘাট ও রংপুরের এই শাসন ব্যবস্থার মূল নিয়ন্ত্রণকর্তা ছিল রিয়াজ-আস-সালাতিন। কোম্পানি শাসনের শুরুতে ফকির-সন্ন্যাসী বিদ্রোহ সহ অনেক বিদ্রোহ সংঘটিত হয়।


    রংপুর বিভাগের জেলা সমূহ

    • কুড়িগ্রাম
    • গাইবান্ধা
    • ঠাকুরগাঁও
    • দিনাজপুর
    • নীলফামারী
    • পঞ্চগড়
    • রংপুর এবং
    • লালমনিরহাট

    রংপুর বিভাগে অনেক দর্শনীয় স্থান রয়েছে যা দেখে আপনারা শেষ করতে পারবেন না।

    স্বপ্নপুরী

    দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার সদর থেকে পনের কিলোমিটার উত্তর দিকে কুশদহ ইউনিয়ন পরিষদের অধীন খালিকপুর মৌজায় বিশাল জায়গা জুড়ে স্বপ্নপুরী অবস্থিত। ব্যক্তিগত উদ্যোগে ১৯৮৯ খৃষ্টাব্দ থেকে স্বপ্নপুরীর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। আর বর্তমানে স্বপ্নপুরী বাংলাদেশের মানুষের অন্যতম বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। 

    চিড়িয়াখানা, কৃত্রিম চিড়িয়াখানা, কৃত্রিম মৎস্য জগৎ অনেক সুন্প্রাদর কৃতিক দৃশ্যবলি এবং রেস্টুরেন্ট সহ বিভিন্ন বিনোদন সুবিধা নিয়ে পার্কটি গঠিত হয়েছে।তাছাড়া এখানে রাত্রি যাপনের জন্য রয়েছে দশটি ভিআইপি রেস্ট হাউজ, চোদ্দটি  মধ্যম শ্রেণীর রেস্ট হাউজ ও আটটি  অন্যান্য রেস্ট হাউজ। মূল গেটে দুটি পরী আকাশের দিকে হাত তুলে আপনাকে স্বাগত জানাবে, যা সত্যিই মনকে আন্দোলিত করে তুলবে।

    কান্তজিউ মন্দির

    কান্তজিউ মন্দির বাংলাদেশের দিনাজপুরে অবস্থিত প্রাচীন মন্দির। মন্দিরটি হিন্দু ধর্মের কান্ত মন্দির হিসেবে পরিচিত যা লৌকিক রাধা কৃষ্ণের ধর্মীয় প্রথা হিসেবে প্রচলিত। ধারণা করা হয়, মহারাজা সুমিত হর কান্ত এখানেই জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। 

    ২০১৭ সালের কলকাতা বইমেলায় এই মন্দিরের আদলে বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন করা হয়। ১৮৯৭ খ্রিস্টাব্দের ভূমিকম্পে এই মন্দির ধ্বংস হওয়ার আগে রাবণেষু, জন হেনরি এর ১৮৭১ খ্রিস্টাব্দে তোলা ছবিতে মন্দিরের নয়টি রত্ন বর্তমান।

    ময়মসিংহ বিভাগের ইতিহাস

    ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে ঢাকা বিভাগ ভেঙ্গে নতুন ময়মনসিংহ বিভাগ গঠনের ঘোষণা দেন। শুরুতে ঢাকা বিভাগের উত্তর অংশ থেকে প্রতিবেশী ৮টি জেলা নিয়ে পরে ৬টি জেলা নিয়ে ময়মনসিংহ বিভাগ গঠনের পরিকল্পনা করা হয়। 

    এসময় টাঙ্গাইল ও কিশোরগঞ্জবাসী, ময়মনসিংহ বিভাগের অন্তর্ভুক্ত হতে অনীহা ও বিরোধিতা করে এবং ঢাকা বিভাগের অন্তর্ভুক্ত থাকতেই ইচ্ছাপোষণ করে। অবশেষে ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ৪টি জেলা নিয়ে ময়মনসিংহ বিভাগ গঠিত হয়। এ বিভাগের এর আয়তন ১০,৪৮৫ বর্গকিলোমিটার ও জনসংখ্যা ১,১৩,৭০,০০০ জন।


    ময়মসিংহ বিভাগের জেলা সমূহ

    • ময়মনসিংহ জেলা
    • জামালপুর জেলা
    • নেত্রকোণা জেলা
    • শেরপুর জেলা


    রাজশাহী বিভাগের ইতিহাস

    বাংলাদেশের আটটি বিভাগের মধ্যে একটি রাজশাহী। এর জনসংখ‍্যা প্রায় ২ কোটি এবং আয়তন ১৮,১৫৪ বর্গ কিলোমিটার। রাজশাহী বিভাগ আটটি জেলা, ৬৭টি উপজেলা, ৫৯টি পৌরসভার এবং ৫৬৪টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। 

    রাজশাহী, বগুড়া, পাবনা এবং সিরাজগঞ্জ রাজশাহী বিভাগের চারটি প্রধান বাণিজ্যকেন্দ্র এবং বড় শহর। নাটোর, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, জয়পুরহাট প্রধান কৃষি এলাকা। রাজশাহী হল এ বিভাগের রাজধানী।


    ১৮২৯ সালে উত্তরবঙ্গের বিশাল অংশ নিয়ে একটি বিভাগ গঠিত হয়েছিল। সে সময় এর সদর দফতর ছিল ভারতের মুর্শিদাবাদ। ৮টি জেলা নিয়ে এই বিভাগটি গঠিত হয়েছিল। 


    জেলাগুলো ছিলঃ মুর্শিদাবাদ, মালদহ, জলপাইগুড়ি, রংপুর, দিনাজপুর, বগুড়া, পাবনা ও রাজশাহী। কয়েক বছর পর বিভাগীয় সদর দপ্তর বর্তমান রাজশাহী শহরের রামপুর-বোয়ালিয়া মৌজায় স্থানান্তরিত হয়েছিল।

    রাজশাহী বিভাগের জেলা সমূহ

    • চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা
    • জয়পুরহাট জেলা
    • নওগাঁ জেলা
    • নাটোর জেলা
    • পাবনা জেলা
    • বগুড়া জেলা
    • রাজশাহী জেলা
    • সিরাজগঞ্জ জেলা

    বাংলাদেশের অন্যান্য অঞ্চলের মত রাজশাহী বিভাগেও নদ-নদীর অভাব নেই। রাজশাহী বিভাগের উল্লেখযোগ্য নদ-নদীসমূহ হচ্ছে পদ্মা, যমুনা, মহানন্দা, আত্রাই, ইছামতি, করতোয়া, বড়াল, নাগর , বাঙ্গালী প্রধান। এছাড়াও রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন অঞ্চলে ছোট ছোট নদ-নদী রয়েছে।


    সিলেট বিভাগের ইতিহাস 


    বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত সিলেট বিভাগ। প্রাচীনকালে এটি শ্রীহট্টের কেন্দ্রীয় প্রদেশ ছিল ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই সিলেট জেলা ছিল চট্টগ্রাম বিভাগের অন্তর্গত। ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দের ১ আগস্ট চারটি জেলা নিয়ে বাংলাদেশের ষষ্ঠ বিভাগ সিলেট গঠিত হয়। 


    এই বিভাগের মোট আয়তন ১২,৫৯৫.৯৫ বর্গ কিলোমিটার সিলেট বিভাগ শিল্প শিল্পদ্রব্য (সার, সিমেন্ট, সিলেট পাল্পস এন্ড পেপার মিলস,ছাতক, বিদ্যুৎ), প্রাকৃতিক সম্পদ, খনিজ সম্পদ (গ্যাস, তেল, পাথর, চুনাপাথর) ইত্যাদিতে ভরপুর। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে এ বিভাগের ভূমিকা অপরিসীম।


    সিলেট বিভাগের জেলা সমূহ

    • সিলেট
    • মৌলভীবাজার
    • সুনামগঞ্জ ও 
    • হবিগঞ্জ

    সিলেট বিভাগ একটি প্রবাসী অধ্যুসিত জনপদ। যুক্ররাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র,অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও ইউরোপীয় দেশসমুহ ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্য সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সিলেট বিভাগের মানুষের বসবাস রয়েছে। প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রা এই বিভাগের প্রধান উৎস। 

    বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সিলেট জেলা সবচেয়ে বেশি অবদান রাখছে। বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রায় ২৩% এ জেলা অবদান রাখছে।



    শেষ কথাঃ আমি যতো দূর পারি বাংলাদেশের সব গুলো বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ কিছু অংশ করে তুলে ধরেছি। আপনাদের যদি এই পোস্ট টি ভাল লাগে তাহলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

    বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন:

    0 Comments

    Please read our Comment Policy before commenting. ??

    Please do not enter any spam link in the comment box.

    আরকে রায়হান নোটিফিকেশন