business loans, commercial loan, auto insurance quotes, motorcycle lawyer

Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition

Assalamu Alaikum Dear Students. Today's Topic is Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition. If you want to get Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition Well in Your Mind Then You Must Read Carefully. Let's know Today's Topic Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition.

Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition
Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition

Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition

Introduction : good is essential for sustenance of life. If food is not pure and fresh, it can pose serious risk to health. So. food safety is an important global public health issue -to ensure sound health. When food is adulterated by adding or mixing of poor quality. inferior, harmful. substandard, useless or unnecessary substances, it is called food adulteration. Food adulteration in Bangladesh has reached at an alarming stage over the last few years. 

Basic food items that are being adulterated : Basic food items on the market like fish, fruits. oils, vegetables, and sweetmeats are adulterated with hazardous chemicals in an indiscriminate manner. Not only in foodstuffs, the life saving medicines are also being adulterated. 

Reasons of food adulteration : Food adulteration has been happening on a massive scale due to increased investment. expansion of market and high consumer demand. Greed for more and more profit and moral degradation among food traders are also responsible for food adulteration. 

Impact of food adulteration : The number of patients suffering from cancer. diabetes. and kidney diseases is on the rise due to. food adulteration. Chemicals used to preserve foodstuffs and the a pesticides used in agriculture are making foods poisonous. Though the average age of the people of Bangladesh is increasing, they are getting infected by various deceases. 

The impact of food adulteration will be grave for the next generation. Adulterated food and chemicals on foodstuffs are destroying our future generation. The children will be less ; and will lack good memory. People will frequently have to go to hospital. Their medical will increase day by day which will cast a serious impact on the socio-economic conditior entire nation is in a terrible risk due to food adulteration. 

Why social uprising against food adulteration necessary : Food and medicine adulteratio on a wide scale across the country. Law along can't never erase the curse from the society. social uprising against food, adulteration is necessary. Both the sellers and the buyer realize the seriousness of adulterations. The dishonest traders must understand that their are not also safe from adulterated foods. They can also be the victims of food adulteration traders are doing for earning some extra money. 

Conclusion : In fact. it. is social uprising that can only prevent food adulteration. If we are health hazards due to food adulteration, it is possible to prevent food adulteration. Othe will get an ill, unhealthy and paralyzed future generation. So, it's time for us to stand up z our voices against food adulteration.

অনুবাদঃ ভূমিকা: জীবন ধারণের জন্য উত্তম অপরিহার্য। খাবার বিশুদ্ধ ও তাজা না হলে তা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। তাই। খাদ্য নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিশ্ব জনস্বাস্থ্য সমস্যা - সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করার জন্য। নিম্নমানের খাবার যোগ বা মেশানোর মাধ্যমে খাদ্যে ভেজাল হলে। নিকৃষ্ট, ক্ষতিকর নিম্নমানের, অপ্রয়োজনীয় বা অপ্রয়োজনীয় পদার্থকে খাদ্যে ভেজাল বলা হয়। বাংলাদেশে খাদ্যে ভেজাল গত কয়েক বছরে উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে।

যেসব মৌলিক খাদ্য সামগ্রীতে ভেজাল হচ্ছে: বাজারে পাওয়া মৌলিক খাদ্য সামগ্রী যেমন মাছ, ফলমূল। তেল, শাকসবজি এবং মিষ্টিজাতীয় খাবারে নির্বিচারে বিপজ্জনক রাসায়নিক মেশানো হয়। শুধু খাদ্যদ্রব্যেই নয়, জীবন রক্ষাকারী ওষুধেও ভেজাল হচ্ছে।

খাদ্যে ভেজালের কারণ: বিনিয়োগ বৃদ্ধির কারণে খাদ্যে ভেজাল ব্যাপক হারে ঘটছে। বাজার সম্প্রসারণ এবং উচ্চ ভোক্তা চাহিদা। অধিক মুনাফার লোভ এবং খাদ্য ব্যবসায়ীদের মধ্যে নৈতিক অবক্ষয়ও খাদ্যে ভেজালের জন্য দায়ী।

খাদ্যে ভেজালের প্রভাব: ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ডায়াবেটিস এবং কিডনি রোগের কারণে বাড়ছে। খাদ্যে ভেজাল। খাদ্যদ্রব্য সংরক্ষণে ব্যবহৃত রাসায়নিক এবং কৃষিতে ব্যবহৃত কীটনাশক খাদ্যকে বিষাক্ত করে তুলছে। বাংলাদেশের মানুষের গড় বয়স বাড়লেও তারা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

খাদ্যে ভেজালের প্রভাব পরবর্তী প্রজন্মের জন্য মারাত্মক হবে। খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল ও রাসায়নিক পদার্থ আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। বাচ্চারা কম হবে; এবং ভাল স্মৃতিশক্তির অভাব হবে। মানুষকে প্রায়ই হাসপাতালে যেতে হবে। তাদের চিকিৎসা দিন দিন বাড়বে যা আর্থ-সামাজিক অবস্থার উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলবে খাদ্যে ভেজালের কারণে পুরো জাতি ভয়াবহ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

কেন খাদ্যে ভেজালের বিরুদ্ধে সামাজিক অভ্যুত্থান প্রয়োজন : সারাদেশে খাদ্য ও ওষুধে ভেজাল ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। আইন কখনো সমাজ থেকে অভিশাপ মুছে দিতে পারে না। খাদ্যে ভেজালের বিরুদ্ধে সামাজিক অভ্যুত্থান প্রয়োজন। বিক্রেতা এবং ক্রেতা উভয়েই ভেজালের গুরুতরতা উপলব্ধি করে। অসাধু ব্যবসায়ীদের বুঝতে হবে তারাও ভেজাল খাবার থেকে নিরাপদ নয়। খাদ্যে ভেজাল ব্যবসায়ীরা কিছু বাড়তি টাকা রোজগারের শিকারও হতে পারে।

উপসংহার: আসলে। এটা সামাজিক অভ্যুত্থান যা শুধুমাত্র খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধ করতে পারে। খাদ্যে ভেজালের কারণে আমরা যদি স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকি তাহলে খাদ্যে ভেজাল রোধ করা সম্ভব। অন্যরা একটি অসুস্থ, অস্বাস্থ্যকর এবং পক্ষাঘাতগ্রস্ত ভবিষ্যত প্রজন্ম পাবে। তাই, খাদ্যে ভেজালের বিরুদ্ধে আমাদের সোচ্চার হওয়ার সময় এসেছে।

The End Of The Article: Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition

We Have Learned So Far Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition. If You Like Today's Necessity of Social Uprising against Food Adulteration Composition, You Can Share it With Your Facebook Friends. And Stay With Our RK Raihan Website To Get Daily New Posts Like This.

Next Post Previous Post