লেখালেখি করে মাসে ৬ হাজার টাকা ইনকাম

ফেসবুকে লিংক শেয়ার করে ১০০০ টাকা আয়

প্রবন্ধ রচনা কি | প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম

বন্ধুরা আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত রচনা পোস্ট করা হবে সেজন্য আপনাদের সুবিধার্থে আমরা প্রথমে প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম সম্পর্কে জানবো। তারপর ধিরে ধিরে সব গুলো রচনা জানবো। টতো চলুন জেনে নেই প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম।

প্রবন্ধ রচনা কি  প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম
প্রবন্ধ রচনা কি  প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম

সুচিপত্রঃ প্রবন্ধ রচনা কি | প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম

  • প্রবন্ধ রচনা কি
  • প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম

ক্লাস ৬ থেকে ১০ম শ্রেনী পর্যন্ত সব ক্লাসে প্রবন্ধ রচনা আছে। তাই শুধু রচনা পড়লেই হবে না। রচনা পড়ার আগে আপনাদের অবশ্যই প্রবন্ধ রচনা কি ও প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম জানতে হবে।

প্রবন্ধ রচনা কি ?

প্ৰবন্ধ হলে প্রকৃষ্টরূপে বন্ধনযুক্ত রচনা। অর্থাৎ অন্যান্য রচনা, যেমন কবিতা, গল্প, উপন্যাস, নাটক ইতাদির সঙ্গে প্রবন্ধ লেখার রীতি ও কৌশলের পার্থক্য রয়েছে। কাবর একান্ত অনুভূতিই কবিতায় প্রকাশ পায়। গদায় হলাে মানবজীবনের নির্বাচিত ঘটনার আখ্যান বী কাহিনি। উপন্যাসের পরিসর বড়। সেখানে লেখক গল্পকারের তুলনায় স্বাধীন। উপন্যাসে সমগ্র জীবনই ফুটে ওঠে। নাটকে কেবলই থাকে সংলাপ। বিবরণ বা বর্ণনার সেখানে তেমন স্থান নেই। কিন্তু প্রবন্ধকে হতে হয় যুক্তি ও তথ্যনির্ভর। কাদের জন্য প্রবন্ধ লেখা হচ্ছে তা-ও মনে রাখতে হবে। কোন বিষয়ে প্রবন্ধ লেখা হচ্ছে তাও গুরুত্বপূর্ণ। প্রবন্ধ-রচয়িতার মেধা, জ্ঞান, প্রকাশক্ষমতা প্রবন্ধের গুণগত মান বাড়িয়ে দেয়। প্রবন্ধের ভাষা স্থির করা হয় প্রবন্ধের বিষয়। অনুসারে। বিজ্ঞানের কোনাে বিষয়ে প্রবন্ধ লিখতে গেলে তাতে বিজ্ঞানের পরিভাষা ব্যবহার করতে হবে। সকল বয়সের পাঠকের জন্য একই ভাষায় প্রবন্ধ লেখা যায় না। শিশুরা যে-ভাষা বুঝবে তাদের জন্য প্রবন্ধ সেভাবে লিখতে হবে। বিষয় অনুসারে প্রবন্ধের শ্রেণিবিভাগ করা হয়। বিজ্ঞানের বিষয়কে আশ্রয় করে রচিত প্রবন্ধকে আমরা বলি বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ। সমাজের সমস্যা, সংকট, অবস্থা যেসব প্রবন্ধের মূল বিষয় সেগুলােকে বলা হয় সামাজিক প্রবন্ধ। সাহিত্যকর্মের গুণাগুণ বিশ্লেষণ করে যেসব প্রবন্ধ রচিত হয়। সেগুলােকে বলে সমালােচনামূলক প্রবন্ধ। লেখকের অনুভূতিই যখন প্রবন্ধের আকারে তুলে ধরা হয় তখন তাকে বলে অনুভূতিনির্ভর প্রবন্ধ। এ ছাড়াও প্রবন্ধের আরও শ্রেণি নির্দেশ করা যায় ।

প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম

প্রবন্ধের প্রধানত তিনটি অংশ থাকে - 

  • ভূমিকা 
  • মূল অংশ 
  • উপসংহার

ক) ভুমিকা: যে-বিষয়ে প্রবন্ধ লেখা হয় সে-বিষয়ে শুরুতেই সংক্ষেপে প্রথম অনুচ্ছেদে একটি ধারণা দেওয়া হয়। এটিই হলাে ভূমিকা। এ অংশ হতে হবে বিষয় অনুযায়ী, আকর্ষণীয় ও সংক্ষিপ্ত ।

খ) মূল অংশ: প্রবন্ধের মধ্যভাগ হলাে মূল অংশ। এখানে প্রবন্ধের মূল বক্তব্য পরিবেশিত হয়। বিষয় অনুসারে এ অংশ বিভিন্ন অনুচ্ছেদে বিভক্ত হতে পারে। প্রতিটি অনুচ্ছেদ যেন মূল প্রবন্ধের সঙ্গে সম্পর্কিত হয় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। এ-অংশে কোনাে উদ্ধৃতি ব্যবহার করা হলে তা যাতে কোনােভাবেই বিকৃত না হয়, অর্থাৎ মূল রচনায় তা যেভাবে আছে সেভাবেই তা ব্যবহার করতে

গ) উপসংহার: অল্প কথায় সমাপ্তিসূচক ভাব প্রকাশ করাই উপসংহার। ব্যক্তিগত মত সমস্যার সমাধানের প্রত্যাশা এ-অংশে প্রকাশ করা যেতে পারে।। 

প্রবন্ধ-রচনায় দক্ষতা অর্জনের উপায়

প্রবন্ধ রচনায় দক্ষতা অর্জন একদিনে হয় না। কিন্তু তা সাধ্যের অতীত কোনাে বিষয় নয়। এজন্য করণীয় হলাে

১. প্রবন্ধের বিষয়বস্তু সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা লাভ করা যায়। 

২। দক্ষতা অর্জনের জন্য প্রবন্ধ পড়া। পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত প্রবন্ধ, সংবাদ, প্রতিবেদন, ভাষণ ইত্যাদি।নিয়মিত পাঠ করলে নানা প্রসঙ্গে বিষয়গত ধারণা লাভ করা যায় ।।

৩. প্রবন্ধের বক্তব্য তথ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে তুলে ধরতে হবে। 

৪. প্রবন্ধ-রচনার ভাষা হবে সহজ ও সরল। 

৫. প্রবন্ধে কোনাে অপ্রয়ােজনীয় বিষয় থাকবে না এবং একই কথার পুনরাবৃত্তি ঘটানাে যাবে না। 

৬. প্রবন্ধে উদ্ধৃতি, উক্তি বা প্রবাদ-প্রবচন ব্যবহার করা যাবে কিন্তু এসবের ব্যবহার যেন অতিরিক্ত পর্যায়ে হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

৭. প্রবন্ধ যাতে অতিরিক্ত দীর্ঘ না হয় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে।

আর্টিকেলের শেষকথাঃ প্রবন্ধ রচনা কি | প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম

শিক্ষার্থী বন্ধুরা তোমরা যাতে সহজে প্রবন্ধ রচনা লিখতে পারো সে জন্য আমরা প্রবন্ধ রচনা লেখার নিয়ম দিয়েছি। যদি এই আরটিকেল্টি আপনাদের বিন্দুমাত্র উপকারে আসে তাহলে এখনি ফেসবুকে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন। আর আমাদের ওয়েবসাইট টি নিয়মিত ভিজিট করুন নিত্য নতুন পোস্ট পেতে।

Next Post Previous Post