আরকে রায়হান https://www.rkraihan.com/2022/03/jatiyo-ful.html

জাতীয় ফুল শাপলা রচনা | জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য


আমার প্রান প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধু আমরা আজকে জাতীয় ফুল শাপলা রচনা ও জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য জানবো। তোমরা জানো শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল। সেই ফুল সম্পর্কে  তোমাদের আগে থেকে অভিজ্ঞতা আছে আমার বিশ্বাস। যদি সেই জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে গোছালো কথা তোমাদের মনে নাই সেই জন্যই আমরা এই জাতীয় ফুল শাপলা রচনা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য তুলে ধরলাম। আশা করি তোমাদের ভালো লাগবে। চল দেখে নেই জাতীয় ফুল শাপলা রচনা ও জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য।

জাতীয় ফুল শাপলা রচনা  জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য
জাতীয় ফুল শাপলা রচনা  জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য

প্রশ্নঃ জাতীয় ফুল শাপলা রচনা লেখ | জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য সহ রচনাটি লিখ।

জাতীয় ফুল শাপলা রচনা

ভুমিকা

বাংলাদেশের প্রাক্রতিক সৌন্দর্য সৃষ্টিতে ফুলের অবদান রয়েছে। অন্যান্য ফুলের মতাে শাপলা সে-সৌন্দর্যের অংশীদার। শাপলা বাংলাদেশের সব অঞ্চলে সহজে পাওয়া যায়। শাপলা ফুলের সৌন্দর্য বাংলাদেশের সর্বত্রই ছড়িয়ে আছে। প্রাক্রতিক সৌন্দর্যের বিবেচনায় ও খুব সহজেই পাওয়া যায় বলে শাপলা জাতীয় ফুলের মর্যাদা পেয়েছে। আমাদের জাতীয় ফুল শাপলার মতাে অন্যান্য দেশেও জাতীয় ফুল রয়েছে। যেমন- ভারতের জাতীয় ফুল পদ্ম, ইরানের জাতীয় ফুল গােলাপ ইত্যাদি।

প্রাপ্তিস্থান

শাপলা জলে জন্মে বলেই এটি জলজ ফুল। খালে-বিলে, হাওড়-বাঁওড়ে, ঝিলে, পুকুরে, নদীতে, পরিত্যক্ত জলাশয়ে এ-ফুল জন্মে এ-ফুল চাষাবাদ করতে হয় না। বিনা যত্নেই এ ফুল ফুটে থাকে।

জাতীয় জীবনে ব্যবহার 

জাতীয় জীবনে এর অনেক ব্যবহারিক দিক রয়েছে। ডাকটিকিট ও মুদ্রায় শাপলার ছাপচিত্রের ব্যবহার আছে। জাতীয় প্রতীকের মর্যাদাও পেয়েছে এ ফুল।

প্রকারভেদ

রঙের বিবেচনায় শাপলার রয়েছে রকমফের। শাপলা সাদা, লাল, নীল, হলুদ, কালচে লাল, বেগুনি-লাল, বক্ত-বেগুনি, নীল-বেগুনি প্রভৃতি রঙের হয়ে থাকে। বাংলাদেশে সাদা, লাল ও নীল- এই তিন রঙের শাপলা পাওয়া যায়। অন্যান্য রঙের শাপলার তুলনায় সাদা শাপলা বেশি পাওয়া যায়। আমাদের জাতীয় ফুল সাদা।

পরিচয় 

পানির নিচের মাটি থেকে প্রথমে মূল বা শিকড় গজায়। আর সে-শিকড় থেকে সরু নলের মতাে একটি দণ্ড পানি ভেদ করে উপরে উঠে আসে এবং পানির উপরে সে-দণ্ডটি থেকে পাতা বের হয়। পাতা বড় ও পুরু হয়ে পানির উপরে ভাসে। আর মূল থেকে একাধিক শাখা বের হয় যা দেখতে অনেকটা ঝাডের মতাে। একাধিক শাখাই মূলত শাপলার নল বা ডাঁটা। এসব নলের মাথায় কলার মুচির আকৃতির ফলের কড়ি। ফেটে ফুলগুলােও পাতার মতাে পানির উপরে ভাসে। শাপলা ফোটে বর্ষাকালে। শাপলা ফুলের মেলায় প্রকৃতিকে অপরূপ সাজে সজ্জিত হতে দেখা যায়।

শাপলা পরিপূর্ণভাবে ফোটার সাথে সাথে পাপড়িগুলাে ঝরে পড়ে; আর নলের আগায় গােলাকার বিচিটি পানিতে ডুবে যায়। পানি বাড়ার সাথে সাথে শাপলার বৃদ্ধি ঘটে। আর পানি কমার সাথে সাথে নিশ্চিহ্ন হতে থাকে। শীত মৌসুমে খালে-বিলে, নদী-নালায় পানি না থাকার কারণে শাপলা মরে যায়। তবে বিচিগুলাে সুপ্ত অবস্থায় থাকে। নতুন বর্ষার আগমনে শাপলাগুলাের শিকড় থেকে আবার চারা গজায়।

সৌন্দর্য 

ষার জলে শাপলা ফোটার সাথে সাথে প্রকৃতি ধরা দেয় নবরূপে। শাপলার সৌন্দর্য এমনভাবে ফুটে ওঠে। যে প্রকৃতিকে অপরূপ বলে মনে হয়। জ্যোস্নারাতে নানা রঙের শাপলা রাতের সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে তােলে।

উপকারিতা 

শাপলা সােন্দর্য বাড়ায়। শিশু-কিশােররা শাপলা ফুল হাতে নিয়ে আনন্দ উপভােগ করে। তারা শাপলার নল দিয়ে মালা গাঁথে। এর নল বা ভাঁটা তরকারি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। শাপলার বিচি থেকে খৈ হয়। তা ছাড়া শাপলা থেকে যে শালুক হয় তা শুকিয়ে খাওয়া যায়।

অপকারিতা

শাপলা অনেক সময় ধানখেতের ক্ষতি করে থাকে। ধানের চারার সঙ্গে শাপলার চারা বাড়লে ধানগাছ। বাড়তে পারে না।

উপসংহার

বাংলাদেশের অধিকাংশই জলজ অঞ্চল। বর্ষাকালে তার সম্পূর্ণ রূপ আমরা দেখতে পাই। আর বর্ষাকালে। শাপলা জলজ ফুল হিসেবে প্রকৃতির শােভাবর্ধন করে। এর স্বাভাবিক সৌন্দর্য বাঙালির লােকজীবনে, জাতীয়। জীবনে বিশেষ স্থান দখল করে আছে। শাপলা ফুলের তুলনা হয় না।

আর্টিকেলের শেষকথাঃ জাতীয় ফুল শাপলা রচনা | জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য

এতক্ষন আমরা জাতীয় ফুল শাপলা রচনা | জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য জানলাম। তোমাদের যদি আজকের জাতীয় ফুল শাপলা রচনা | জাতীয় ফুল শাপলা সম্পর্কে ৫ টি বাক্য ভালো লাগে একটি শেয়ার ও একটি করে জনাবে। কারন তোমাদের জন্য একটু কষ্ট করি সেই কস্টকে বিফলে যেতে দিবে না।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

Please do not enter any spam link in the comment box.

আরকে রায়হান নোটিফিকেশন