business loans, commercial loan, auto insurance quotes, motorcycle lawyer

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা আজকে বিষয় হলো নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা জেনে নিবো। তোমরা যদি নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা টি ভালো ভাবে নিজের মনের মধ্যে গুছিয়ে নিতে চাও তাহলে অবশ্যই তোমাকে মনযোগ সহকারে পড়তে হবে। চলো শিক্ষার্থী বন্ধুরা আমরা জেনে নেই আজকের নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা  টি।

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা
নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা

ভূমিকা: নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ মানবজীবনকে যথার্থ সৌন্দর্যমণ্ডিত করে তোলে । নৈতিকতা ও মনুষ্যত্বের মধ্যে রয়েছে এক নিবিড় সম্পর্ক। মনুষ্যত্ব অর্জনের সাধনা হলো মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় সাধনা। নৈতিকতার স্বরূপ প্রকাশিত হয় সততা, ন্যায়পরায়ণতা, আদর্শবাদিতা ইত্যাদি গুণের সমাবেশের মাধ্যমে। নৈতিকতা ও মূল্যবোধ মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় গুণ ।

নৈতিক শিক্ষা কী: ন্যায়পরায়ণতা, সত্যবাদিতা, প্রতিশ্রুতি রক্ষার মনোভাব, সাধুতা ইত্যাদি মহৎ গুণের সমন্বয়কে আমরা এককথায় নৈতিকতা বলতে পারি । আর এসব গুণের শিক্ষালাভ করাই হচ্ছে নৈতিক শিক্ষা ।

নৈতিক মূল্যবোধ কী: নৈতিক মূল্যবোধ হলো নীতি-আদর্শ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত জীবনব্যবস্থার অভিব্যক্তি। মানুষের জীবন সকল প্রকার অন্যায়, অবিচার, অনাচার ও স্বার্থপরতার সংকীর্ণতা থেকে মুক্ত থাকবে। আর এমন হলেই আমরা ধরে নেব সেখানে নৈতিক মূল্যবোধ আছে। সকল প্রকার দুর্নীতিমুক্ত জীবনই আদর্শ বা নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন জীবন। নৈতিক মূল্যবোধের ফল হচ্ছে মানবিক গুণে গুণান্বিত চরিত্র ।

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ কেন প্রয়োজন: নৈতিকতা ও মূল্যবোধ না থাকলে মানুষের জীবন বিপথে পরিচালিত হয় এবং ধ্বংস হয়ে যায়। আমরা কেউ কখনো চাই না যে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের অভাবে আমাদের জীবন নষ্ট হয়ে যাক। আমাদের জীবনকে সৎ, সুন্দর মহৎ ও আনন্দময় করে তুলতে নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ একান্ত প্রয়োজন । যার মধ্যে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের অভাব রয়েছে সেই অন্যায় পথে চলে । তাই অন্যায় পথ রোধ করার জন্যই নৈতিক শিক্ষা লাভ করতে হবে। নৈতিকতা ও মূল্যবোধই হলো সত্য ও সুন্দরের একমাত্র পথ। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে যেমন নৈতিকতা ও মূল্যবোধের গুরুত্ব রয়েছে, তেমনই ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকেও। তাই আদর্শ, মহৎ, সৎ ও সুন্দর জীবনযাপনের জন্য নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য ।

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধের সম্পর্ক: নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ একে অপরের সাথে অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। ন্যায়-অন্যায়ের মধ্যে পার্থক্য সৃষ্টি করা যায় মূল্যবোধের মাধ্যমে। অপরদিকে নৈতিকতাও ন্যায়-অন্যায়ের মধ্যে ব্যবধান সৃষ্টি করে। নৈতিকতা ও মূল্যবোধের সকল প্রকার কার্যাবলি বিবেচনা করে দেখা যায় যে, নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ নিবিড়ভাবে সম্পর্কযুক্ত।

নৈতিকতা ও মূল্যবোধের গুণাবলি: প্রেম-প্রীতি, স্নেহ-মমতা, দয়া, দান, সহানুভূতি ইত্যাদি মানব হৃদয়ের স্বভাবিক গুণ। নৈতিকতা ও মূল্যবোধের মাধ্যমে এসব গুণের বিকাশ ঘটে থাকে। মানুষের জীবনে শান্তি ও সমৃদ্ধির প্রথম সোপান হলো নৈতিকতা ও মূল্যবোধ। আর এ সোপান প্রশস্ত হয় পারিবারিক, সুশিক্ষা, সৎসঙ্গ, হিতৈষী শিক্ষক ও গুরুজনের উপদেশের মাধ্যয়ে।

নৈতিকতা ও মূল্যবোধের সামাজিক মূল্য: নৈতিকতার সামাজিক মূল্য অপরিসীম । আজকের পৃথিবীর মানুষ সত্যকে বাদ দিয়ে মিথ্যাকে জীবনের সাথে আঁকড়ে ধরেছে। বর্তমান বিশ্বসমাজে ন্যায়, সত্য ও সুন্দরের বড়ই অভাব, অভাব-অনটন, দরিদ্র-ক্লিষ্টতা মানুষকে মিথ্যাচারী ও অসপ্রবণ করে তুলেছে। অসত্যের মধ্য থেকে মানুষ জীবনের সুখ-শান্তি হারিয়ে ফেলেছে। সমাজজীবনে মানুষ খুঁজে খুঁজেও শান্তির দেখা পাচ্ছে না। শান্তিহীন সমাজে মানবজীবন হাঁপিয়ে উঠেছে। তাই সমাজ থেকে অন্যায়-অবিচার দূর করে শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য নৈতিকতা ও মূল্যবোধের গুরুত্ব সর্বাধিক।

নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধের উপযোগিতা: মানবজীবনে নৈতিকতা একটি ' অপরিহার্য গুণ। জীবনকে সুখী ও সমৃদ্ধ করতে হলে অবশ্যই নৈতিকতার উৎকর্ষমণ্ডিত করতে হবে নিজেকে ৷ তা হলে জীবন হবে সুন্দর ও টে ন্যাও পায়ের মধ্যে যতই শত্তি থাকুক না ফেন তার মধ্যে শাত়মর। ফা অশান্তি বিরাজ করে। সত্য ও ন্যায়ের পথ সবসময় উজ্জ্বল থাকে। আর অসত্য সবসময় পরাজয়ের গ্লানি বয়ে চলে । সেজন্য সবসময় নৈতিকতার অনুশীলন করতে হবে এবং জীবনে নৈতিকতা ও মুল্যবোধের প্রতিফলন ঘটিয়ে যথার্থ মনুষ্যত্বের অধিকারী হতে হবে। 

নৈতিকতা ও মূল্যবোধের গুরুত্ব: মানবজীবনকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নৈতিকতা ও মূল্যবোধের গুরুত্ব অপরিসীম ৷ জীবনের অগ্রগতিকে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য নৈতিকতা ও মূল্যবোধ . রক্ষার বিকল্প নেই। নৈতিকতাবোধ সম্পন্ন ব্যক্তি সবসময় সামনে এগিয়ে হায়। তার, গতিকে অনৈতিক ছারা না ৷_ সমাজের মানুষের মধ্যে নৈতিকতা ও ধ রয়েছে তাদের সমাজজীবনে সস শািও রয়েছে তাই বি শান্তির জন্য নৈতিকতা ও মূল্যবোধের গুরুত্ব অপরিসীম ।

নৈতিক, মূল্যবোধ ও আমাদের বর্তমান: বর্তমান প্রেক্ষাপটে আমাদের সমাজব্যবস্থায় দুর্নীতির অনুপ্রবেশ ঘটায় নৈতিকতা ও মুল্যবোধের অবক্ষয় ঘটেছে। জীবনের সর্বস্তরে এখন দুর্নীতি রাজত্ব করে চলেছে। বর্তমান . সমাজের মানুষ এখন অন্যায়কে অন্যায় বলে বিবেচনা করে না। অন্যায় যেন . মানবসমাজে মিশে একাকার হয়ে আছে। দুনীতিগ্রস্ত মানুষ আজ সম্পদের . পাহাড় গড়েছে। আর ন্যায়বান মানুষ ভুগছে অনাহারে ৷ মনে হয় সমাজে অন্যায়ের প্রতিযোগিতা চলছে। বর্তমান যুগে দুর্নীতি মানুষের মধ্যে রোগের মতো ছড়িয়ে সমাজদেহকে জর্জরিত করে ফেলেছে। সমাজ এখন দুণীতি রাগে রুগৃণ ৷

নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণ: জাতীয় জীবনের সামগ্রিক পরিবেশের সঙ্গে মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণ সম্পৃক্ত। নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণ হচ্ছে দুর্নীতির ব্যাপক প্রসার। অর্থনৈতিক অভাবও এর একটি অন্যতম কারণ বলে বিবেচ্য। দারিদ্র্যসীমার ছায়ায় দেশে অধিকাংশ লোক বসবাস করছে। কেউ দুমুঠো খেতে পারছে, কেউ বা না খেয়ে দিন কাটাচ্ছে। আবার কেউ রোদে পুড়ছে, বৃষ্টিতে ভিজছে। তাছাড়া বেকারত্ব সমস্যা যুবসমাজে নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয় ঘটাচ্ছে। চারপাশে সন্ত্রাসের প্রবণতা বাড়ছে। অভাব অনটনকে মোকাবিলা করার জন্য অনেকে দুর্নীতিপরায়ণ হয়ে যাচ্ছে।

অনৈতিকতা ও মূল্যবোধহীনতার পরিণাম: বর্তমান সমাজজীবনে নৈতিক মূল্যবোধগুলোর যে অবক্ষয় দেখা যাচ্ছে তার পরিণামে সমাজ আজ চরম নীতিবোধহীনতায় ভুগছে । আর নীতিহীনতার কারণে সমাজে লেগে আছে অশান্তির পর অশান্তি। নৈতিকতার অবক্ষয়ের কারণে সমাজ আজ অবৈধ কার্যকলাপে পরিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। মারামারি, ছিনতাই, রাহাজানি যেন বর্তমান সমাজের নিত্যসঙ্গী।

অনৈতিকতা ও মূল্যবোধহীনতা রোধের উপায়: সমাজজীবন থেকে অনৈতিকতা ও মূল্যবোধহীনতা অবশ্যই রোধ করতে হবে। সমাজের সকল প্রকার অন্যায়-অবিচারের অবসান ঘটাতে হবে। অন্যায়কারীর জন্য কঠোর শান্তির ব্যবস্থা করতে হবে। প্রশাসনিক কাজে নীতিবোধ জাগিয়ে তুলতে হবে। জনগণের মধ্যে দেশাত্মবোধ জাগাতে হবে। তবেই অনৈতিকতা ও মূল্যবোধহীনতা রোধ করা যাবে।

উপসংহার: পৃথিবীর সকল মহামানব এই পৃথিবীতে নিজেদের স্থান করে নিয়েছেন আপন চরিত্রবলে। তাঁরা নৈতিকতা দিয়ে অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন । জীবনকে সুখী, সমৃদ্ধ ও সার্থক করতে নৈতিকতার গুরুত্ব অপরিসীম। নৈতিকতা ও মূল্যবোধ ছাড়া কখনো জীবন শান্তিময় হয় না। নৈতিক মূল্যবোধের অভাবের কারণে মানবসমাজে আজ চরম দুর্দশা। জাতি আজ হয়ে পড়ছে দিশেহারা। তাই জাতিকে সুপথে চালিত করতে, ব্যক্তিজীবনে- সুখ-শান্তি ফিরিয়ে আনতে নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ ।

আর্টিকেলের শেষকথাঃ নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা

আমরা এতক্ষন জেনে নিলাম নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা  টি। যদি তোমাদের আজকের এই নৈতিক শিক্ষা ও মূল্যবোধ রচনা  টি ভালো লাগে তাহলে ফেসবুক বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে দিতে পারো। আর এই রকম নিত্য নতুন পোস্ট পেতে আমাদের আরকে রায়হান ওয়েবসাইটের সাথে থাকো।

Next Post Previous Post