আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা আজকে বিষয় হলো আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও জেনে নিবো। তোমরা যদি পড়াটি ভালো ভাবে নিজের মনের মধ্যে গুছিয়ে নিতে চাও তাহলে অবশ্যই তোমাকে মনযোগ সহকারে পড়তে হবে। চলো শিক্ষার্থী বন্ধুরা আমরা জেনে নেই আজকের আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও।

আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও
আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও

আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও

উত্তর : ভূমিকা : ইসলামের ইতিহাসে আব্বাসীয় খিলাফত একটি গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়ের সূচনা করে। মুসলিম জাহানে খিলাফতের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে আব্বাসীয়রা ধীরে ধীরে। একটি শক্তিশালী বিপ্লবের ধারা সূচনা করে। যার ফলে ধীরে ধীরে . তাঁরা উমাইয়াবিরোধী শক্তিতে বিরাট শক্তিশালী অবস্থান গড়ে তোলে। আব্বাসীয় বংশের বিরাট গতিময়তার সামনে তৎকালীন উমাইয়া খলিফাদের দুর্বলতা এবং খলিফাদের অযোগ্যতার প্রকাশ আব্বাসীয় বংশ প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা পালন করে।

→ আব্বাসীয় কারা : আব্বাসীয় বংশের নামের ইতিহাস খুঁজলে দেখা যায়, রসুল (সা.)-এর চাচা আবুল আব্বাস বিন আব্দুল মুত্তালিব বিন হাশিমের নাম থেকে আব্বাসীয় নামকরণ হয়েছে। আবুল আব্বাসের ছিল চার পুত্র। তার এ চার পুত্রের মধ্যে জ্যেষ্ঠপুত্র আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস ইতিহাসে ইবনে আব্বাস নামে পরিচিত। আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস ছিলেন হাশেমি বংশোদ্ভূত। হাশেমি বংশোদ্ভূত ইবনে আব্বাস কারবালার ঐতিহাসিক ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ছিলেন। এ ঘটনায় তিনি মর্মাহত হয়ে তায়েফে প্রাণ ত্যাগ করেন। এরপর আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাসের পুত্র আলী এবং আলীর মৃত্যুর পর মুহাম্মদ বিন আলী পরিবারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ মুহাম্মদই  ছিলেন আব্বাসীয় আন্দোলনের প্রথম ব্যক্তি বা পথিকৃৎ। আর আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাসের পরিবারে সকল ব্যক্তিরাই ইতিহাসে আব্বাসীয় নামে পরিচিত। মুহাম্মদের | নেতৃত্বে আহল আল বারাতের নামে পরিচালিত আন্দোলনের মাধ্যমে ৭৫০ সালে উমাইয়াদের পতন ঘটে এবং আব্বাসীয়রা ক্ষমতায় আরোহণ করে। ১২৫৮ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ৫০০ বছর | আব্বাসীয়রা শাসন ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ছিলেন।

উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, ৭৫০ খ্রিস্টাব্দে আবুল আব্বাস আস সাফফাহ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত রাজবংশ ইতিহাসে বিখ্যাত | আব্বাসীয় বংশ নামে পরিচিত। এ বংশের ৩৭ জন খলিফা সুদীর্ঘ ৫০০ বছরের শাসনামলে, তাঁদের বিচক্ষণ ও সাহসী, গৌরবদীপ্ত নেতৃত্বের মাধ্যমে ইতিহাসে এক বিস্ময়কর অবস্থান হিসাবে পরিচিত হয়ে আছেন । যা ইসলামের ইতিহাসে একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় ।

আর্টিকেলের শেষকথাঃ আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও

আমরা এতক্ষন জেনে নিলাম আব্বাসীয় বংশের পরিচয় দাও। যদি তোমাদের আজকের এই পড়াটিটি ভালো লাগে তাহলে ফেসবুক বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে দিতে পারো। আর এই রকম নিত্য নতুন পোস্ট পেতে আমাদের আরকে রায়হান ওয়েবসাইটের সাথে থাকো। 

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url
আরও পড়ুনঃ
আরও পড়ুনঃ